বলুন তো ট্রেনের ছাদে গোল ঢাকনা কেন থাকে? 99% মানুষ ভুল জানেন।

ভারতীয় রেল পরিষেবার ইতিহাস অনেক বড়। ব্রিটিশ আমল থেকে শুরু হয় রেলের যাত্রা। স্বাধীনতার সময়ও ট্রেনের এক গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় ছিল। এরপর থেকে ধীরে ধীরে সময়ের সাথে বিভিন্ন আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে এই ব্যবস্থায়। প্রত্যেকদিন ভারতের প্রায় লক্ষাধিক মানুষ যাতায়াত, বেড়াতে যাওয়া এবং তাদের রোজকার গন্তব্যে পৌঁছানোর জন্য ট্রেন ব্যবহার করে থাকেন।

Advertisement

ট্রেনের এই ফিচারটি না জানলে জেনেনিন।

কারণ ট্রেনের যাতায়াত ভাড়া অনেক কম এবং খুব দ্রুত, আরামে পৌঁছে যাওয়া যায় নিজের গন্তব্যে। এছাড়াও ব্যবসার কাজেও ব্যবহার করা হয়। দেশের দূর-দূরান্ত থেকে শুরু করে বিদেশে অর্থাৎ বাংলাদেশ আমদানি রপ্তানীর জন্য এই মাধ্যম ব্যবহার করা থাকে। যেহেতু ভাড়া কম তাই জন্য দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধ হয় কম। এতো গেলো রোজকার গল্প এছাড়াও এক বিরাট অধ্যায় থাকে এটি তৈরি এবং মেন্টেনের।

বহু মানুষ এই রেল পরিষেবার সাথে যুক্ত থাকেন। ট্রেন চালানো, লাইন ঠিক করা, সিগন্যাল দেওয়া ইত্যাদি। রোজ এই এত বড় পরিষেবা এবং দিনে এত এত রেল চলাচলের প্রক্রিয়াটি খুব নিপুন ভাবে সম্পন্ন করে রেলকর্মীরা। যাত্রিদের বিভিন্ন রকমের সুবিধা দিয়ে থাকে এই দপ্তর। রেলের ইতিহাস এবং রেল পরিচালনার কথা জানতে গেলে একটা অনেক সময়। কারণ প্রচুর ফিচার থাকে ট্রেনে। সেগুলির মধ্যে আজকে একটি ফিচার নিয়ে আলোচনা করব।

জানেন কি একটি ট্রেনের মাইলেজ কত কিম্বা সারা ভারতে মোট কতগুলি রেল স্টেশন আছে??

আপনারা কেউ কখনো না কখনো দূরপাল্লায় রেল পথে যাতায়াত অবশ্যই করেছেন। তখন নিশ্চয়ই দেখেছেন ছাদে কেমন গোল গোল ঢাকনা দেওয়া। আপনি জানেন এটি কিসের জন্য করা থাকে। এর আগেই বলেছি, প্রচুর মানুষ এক এক ডিরেক্ট ট্রেনে যাতায়াত করে। ট্রেনের কামরায় একসাথে অনেক ব্যক্তি থাকলে পরে সেখানে হাওয়া চলাচল করতে পারে না। জানিনা থাকলেও অত্যাধিক ভিড়ে সেটি খুব কমই হাওয়া পাস করে।

এছাড়াও শীতকালে অর্ধেক সময় যাত্রীরা ঠান্ডা হওয়ার ভয়ে জানালা গুলিকে বন্ধ করে দেয় সেই ক্ষেত্রে এই ভুলগুলি হাওয়া পাসের কাজ করে। তবে আপনি নিশ্চয়ই ভাবছেন যে ছাদের মাথায় এত বড় বড় ফুটো থাকলে বৃষ্টির সময় তো নিশ্চয়ই বৃষ্টির জল কামরায় ঢুকে যায়।

শরীর সবসময় যাত্রীদের সুরক্ষা এবং আরামের দিকে নজর রাখে এরকম কোন ভুল করবে না যাতে যাত্রীদের অসুবিধা হয়। এই হাওয়া পাশের হোলকুলে এমন ভাবে তৈরি করা আছে যাতে বাইরে বৃষ্টির জল ভেতরে না ঢুকে কিন্তু কামরার দূষিত হওয়া বাইরে বেরিয়ে যায়। এই ধরনের আরও প্রয়োজনীয় তথ্য জানতে আপনারা চোখ রাখুন আমাদের ওয়েবসাইটে। এই তথ্যটি আপনাদের কেমন লাগলো তা অবশ্যই আমাদেরকে জানান।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button